April 29, 2018 A- A A+

বরিশালে সাইকেল স্টান্ট নিয়ে তরুনদের স্বপ্ন

আজকাল সাইকেলকে অনেকেই দৈনন্দিন যানবাহন হিসেবে বেছে নিচ্ছেন। এছাড়া আমাদের দেশের যানজটের জন্য অনেকেই সাইকেল ব্যাবহার করেন কমসময়ে গন্তব্য স্থানে পৌঁছাবার জন্য। এই সাইক্লিস্টদের কেন্দ্র করেই বরিশালে প্রায় ১ বছরেরও বেশি সময় আগে সাইক্লিস্টদের একটি গ্রুপ, বিসিআরযেট গড়ে উঠেছিলো। আজ তারা বরিশালের একটি অন্যতম সাইকেল প্লাটফর্ম। গ্রুপটির মেম্বারের সংখ্যা রয়েছে অনেক। তার মধ্যে পূর্নাঙ্গ কাজ করছে ৪৫-৫০ জন তরুনরা। তাদের থেকে বাদ পড়েনি ৫ম শ্রেনীতে পড়ুয়া ছাত্ররাও। প্রতিদিন প্রাকটিসের পাশাপাশি প্রতি সপ্তাহে তারা নগরীর বিভিন্ন স্থানে সাইকেলকেন্দ্রিক বিভিন্ন ইভেন্ট আয়োজন করে, যাতে নানাবয়সি মানুষ যোগ দেয়।  তাই গতকাল শুক্রবার বরিশাল নগরীর বঙ্গবন্ধু উদ্যান সংলগ্ন সড়কে সাইকেল স্টান্ট এর আয়োজন করে স্টান্ট প্রেমীরা।

মোঃ মাইনুল হোসাইন এর তত্বাবধানে বরিশালে গড়ে উঠেছে এই তাক লাগানো সাইকেল স্টান্ট। যা বরিশালে বিনোদন প্রিয় মানুষদেরকে বিনোদনের পাশাপাশি তাক লাগিয়ে দিচ্ছে। এমন সাইকেলের পাশাপাশি মটরসাইকেলে স্টান্ট দিয়ে সবাইকে চমক লাগিয়ে দিল স্টান্টার জনি। এছাড়া এই সাইকেল স্টান্ট দলে কাজ করছে  ওয়াসি, ইফতি, মুবিন,লরিন  কাওসার,নাঈম,জিদান,রোহান সহ আরো অনেকে। এ ব্যপারে বরিশালে সাইকেল স্টান্টের উদ্দ্যোক্তা, মাইনুল হোসাইন জানান, আমি ছোটবেলা থেকেই এই সাইকেল স্টান্ট প্রাকটিস করে আসছি। এটা একা করা যায় না বিধায় আমি বরিশালে আমার বন্ধুদের সহ ছোট ভাইদের সাথে নিয়ে কাজ করছি। বরিশালের আমরা ৫০ জনের একটি গ্রুপ রয়েছি। এছাড়া নিরাপদ রাস্তা হিসেবে বেছে নিয়েছি নগরীর মডেল স্কুল সংলগ্ন রাজা বাহাদুর সড়কটি। যেটা অন্যান্য রাস্তার তুলনায় অনেকটাই নিরাপদ। আমরা চাই এই সাইকেল স্টান্টের মাধ্যমে বরিশালের নাম আরো উজ্বল করবো। তাক লাগিয়ে দিবো সারা বিশ্বকে। যাতে মানুষ যানতে পারে বরিশালের মানুষ কোন দিক থেকে পিছিয়ে নয়। ইতিমধ্যে আমরা বিভিন্ন কোম্পানির আয়োজিত অনুষ্ঠানে অংশগ্রহন করেছি। সম্প্রতি আমরা বরিশাল গ্রামীনফোন কোম্পানির একটি প্রোগাম করেছি। এদিকে, স্টান্টার ইফতি জানায়, আমাদের এই সাইকেল স্টান্ট করতে গিয়ে নানা সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। মাঝে মাঝে স্থানীয়দের বকাবকি ও পুলিশের হয়রানীতে আমাদের প্রাকটিস ব্যহত হচ্ছে। তাই সচেতন ও উপরস্ত অবিভাবকদের কাছে অনুরোধ আমাদের এই সাইকেল স্টান্টকে আরো সামনের দিকে এগিয়ে নিতে আমাদের সাহায্যে করবেন। যাতে আমরা দেশ ও দশের মুখ উজ্বল করতে পারি। এ ব্যপারে পথচারী মোঃ রিন্টু জানান, বরিশালে সাইকেল স্টান্ট একটি ভাল উদ্যোগ যা মানুষদেরকে বিনোদন দিয়ে থাকে। এছাড়া তরুনদের প্রতিভা বিকাশেও সাহা্য্য করে। কিন্তু  একটা সমস্যা হচ্ছে ওরা (তরুনরা) ঝুঁকি নিয়ে এসব কাজ করছে। কিন্তু প্রযোজনীয় কোন হেলমেট , গ্লোভস বা দূর্ঘটনা রোধ করার মত প্রক্রিয়া অবলম্বন করছে না। তাই সাইকেল স্টান্ট করতে হলে এটা বাধ্যতামূলক করা দরকার বলে আমি মনে করছি। এদিকে বাংলাদেশের সাধারণ মানুষ স্টান্ট করাটা ভালভাবে গ্রহণ করতে পারেনি। তাদের দেখে সাধারণ মানুষ ধরে নেয়, সব স্টান্টার একই স্বভাবের। এতে নানা ধরনের ক্ষতি হতে পারে। তাই সাইকেল স্টান্ট করতে হলে নিজেদের সেফটি করে হেলমেট পড়ে করার পরামর্শ দিচ্ছে সচেতন মহল।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail