August 6, 2018 A- A A+

বাকেরগঞ্জের এমপি রত্না আমিন আশ্বাস দিয়েও ফিরিয়ে দেননি সেই পুলিশ পরিবারের জমি

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥
বাকেরগঞ্জ উপজেলার ৬নং ওয়ার্ডে নির্মাণাধীন বরিশাল-৬ (বাকেরগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্যের নামে ‘রতত্না আমিন মহিলা কলেজ’ ভবনে এক পুলিশ পরিবারের জমি রয়েছে বলে সম্প্রতি বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হয়। বিষয়টি ঢাকায় বসে এমপি রতত্না আমিনের নজরে এলে বাকেরগঞ্জ থানা পুলিশকে তিনি তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ দেন। বাকেরগঞ্জ থানার ওসি মাসুদ্জ্জুামান এবং কলেজ কর্তৃপক্ষের তত্বাবধানে গত ২৭ জুলাই শুক্রবার সার্ভেয়ার দ্বারা জমি মাপা হয়। এতে ৩.১১ শতাংশ জমি কলেজ ভবনে দখল হয়েছে বলে পরিলক্ষিত হয়। এরপরে ভুক্তভোগী পরিবারকে অন্য জায়গা থেকে এই পরিমান জমি দেওয়ার আশাস দেওয়া হয়। বিসিসি নির্বাচনের পর ৪ আগষ্ট এই জমি বুঝিয়ে দেওয়ার কথা ছিল এবং সেই পর্যন্ত ভবন নির্মাণের কাজ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত হয়।
কিন্তু ৪ আগষ্ট জমি বুঝিয়ে না দিয়ে কলেজের অধ্যক্ষ হুমায়ুন কবীর বলেন, আমি আজ অফিসিয়াল কাজে ঢাকায় আছি। এমপি মহোদয়ের সাথে কথা হয়েছে। তিনি নিজেই ঐ পরিবারকে জমি বুঝিয়ে দিবেন।
অথচ দিচ্ছি দিব করে আজ অবধি জমি বুঝিয়ে দেওয়া হয়নি। পুরোদমে শুরু হয়েছে ভবন নির্মাণের কাজ। থানার ওসি মাসুদুজ্জামান ‘দেখছি’ বলেই দায় সাড়ছেন। এমতাবস্থায় নিজের ন্যায্য জমি পাওয়ার জন্য ক্ষমতার কাছে হার মেনে দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন অসহায় পুলিশ পরিবার।
অবসর প্রাপ্ত পুলিশ সদস্য আব্দুল মজিদ আকন জানান. জেএল-৪৬ ভরপাশা মৌজার খতিয়ান নং ৪০৩৭, দাগ নং ১৫৫৭, ১৫৫৮, ১৫৫৯, ১৫৬০ এ অবস্থিত বাড়ির একাংশ জোর পূর্বক দখলে নিয়ে রতত্না আমিন মহিলা কলেজের ভবন নির্মাণ করা হচ্ছে। একাধিক বার প্রতিবাদ করে কোন ফলাফল পাওয়া যায়নি। সবশেষ কয়েকদফা বসাবসি ও মাপামাপির পরে অদ্যাবধি আমাকে জমি বুঝিয়ে দেয়নি। এমপির ক্ষমতার কাছে বাকেরগঞ্জ থানা পুলিশ সব কিছু দেখেও কিছু বলছেনা।

ভুক্তভোগী অসহায় অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্য আঃ মজিদ এ বিষয়ে তার ন্যায্য জমি তাকে বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য সরকারের উপর মহলের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এদিকে কলেজের প্রতিষ্ঠাতার নাম পরিবর্তন নিয়ে এলাকায় গুঁজবের ছড়াছড়ি চলছে বলে জানা যায় । তাদের দাবি সাবেক শিক্ষা প্রতি মন্ত্রী মরহূম অধ্যক্ষ মোঃ ইউনুস খান প্রতিষ্ঠা করেন এই কলেজ।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail